বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৮ বৈশাখ ১৪২৮ , ১০ রমজান ১৪৪২

দেশ

শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় ইব্রাহিম খালেদকে শেষ বিদায়

নিউজজি প্রতিবেদক ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০২১, ০২:১৯:৫৯

  • ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা: অশ্রুসজল চোখে খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদকে শেষ বিদায় জানালো দীর্ঘদিনের সহকর্মী, বন্ধু-শুভাকাঙ্খী ও সর্বস্তরের মানুষ। বুধবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর কচিকাঁচার মেলা প্রাঙ্গনে তাঁর প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আসেন সতীর্থরা। পরে দু’দফা জানাজা শেষে দেহ নিয়ে যাওয়া হচ্ছে নিজভূম গোপালগঞ্জে। সেখানেই পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

এর আগে আজ ভোরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৮০ বছর বয়সে মারা যান বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক ডেপুটি গভর্নর খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদ। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মোহাম্মদ আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রাণের সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রাঙ্গনে বুধবার সকালেই খোন্দকার ইব্রাহিম খালেদের দেহ নিয়ে আসার কথা ছিলো। প্রিয় মুখগুলো তাকে বরণ করে নেবার জন্য ছিলো অধীর অপেক্ষায়।

কিন্তু অনাকাঙ্খিত ট্রাফিক জ্যামের কারণে প্রায় এক ঘন্টা পরে বেলা বারোটার দিকে প্রিয় সেই প্রাঙ্গনে পৌঁছায় ইব্রাহিম খালেদের নিথর দেহ। রাখা হয় ফুলে ফুলে সাজানো মঞ্চ।

অশ্রুসজল চোখে প্রিয় মানুষটির প্রতি একে একে শেষ শ্রদ্ধা জানান তার দীর্ঘদিনের সহকর্মী, বন্ধু-শুভাকাঙ্খী ও সর্বস্তরের মানুষ। দেশের ব্যাংকিং খাতে তার অবদানের কথা স্মরণ করেন সহকর্মীরা।

খোন্দকার ইব্রাহিমের মৃত্যুর সাথে যে আলো নিভে গেছে তা যে আর পূরণ হবার নয় সেই আক্ষেপও উঠে আসে সহকর্মীদের কথায়।

করোনা আক্রান্ত হয়ে শ্যামলীর একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন তিনি। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে গত রোববার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয় ইব্রাহিম খালেদকে। সেখানেই বুধবার ভোরে মারা যান তিনি।

সেগুনবাগিচার কচিকাঁচার মেলা প্রাঙ্গনে প্রথম নামাজে জানাজা শেষে তাঁর দেহ নিয়ে যাওয়া হয় বায়তুল মোকাররম মসজিদে। সেখানে আরেক দফা হয় জানাজা।

পরে ইব্রাহিম খালেদের দেহ দাফনের জন্য নেয়া হয় গোপালগঞ্জের গ্রামের বাড়িতে।

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers