বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ , ১৮ জিলহজ ১৪৪২

দেশ

বাবার হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে ছেলের সংবাদ সম্মেলন

পঞ্চগড় প্রতিনিধি ১৯ জুন, ২০২১, ২১:০৯:১৪

  • ছবি : নিউজজি

পঞ্চগড়: জমি নিয়ে বিরোধের জেরে তেঁতুলিয়া উপজেলা খাদ্য গুদামের কর্মচারী চাঁন মিয়াকে (৫৫) কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িতদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও বিচার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তার সন্তান। বাবাকে হত্যার অভিযোগে মামলা করার পর তার দুই ছেলেকেও হত্যার হুমকি দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।

শনিবার (১৯ জুন) বিকেলে পঞ্চগড় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ করেন নিহত চাঁন মিয়ার দুই ছেলে আসলাম উদ্দিন ও আবু বক্কর সিদ্দিক।

সংবাদ সম্মেলনে তারা জানান, তেঁতুলিয়া উপজেলা সদরের তেলিপাড়া এলাকার আবুল খায়েরের সাথে তেঁতুলিয়া উপজেলা খাদ্য গুদামের কর্মচারী ও কানকাটা এলাকার চাঁনমিয়ার জমি নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। খায়ের তার লোকজন নিয়ে একাধিকবার চাঁনমিয়া ও তার পরিবারের লোকজনের উপর হামলা করেছে।

আদালতে একাধিক মামলাও চলমান রয়েছে। এমনকি খায়ের তার জমি কবজা করতে চাঁনমিয়ার আপন ভাই মালেক ও তার দুই ছেলেকেও হাত করে নেয়।

গত ১৪ জুন বিকালে খায়ের, তার ভাই কামরুল, চাচাতো ভাই লিটন, চাঁনমিয়ার ভাই আব্দুল মালেক, মালেকের দুই ছেলে রহমান ও আলী, খায়েরের স্বজন সোহেব, রফিকুল ইসলাম, জব্বার, জুলহাস ও মানিকসহ আরো ৮/১০ জন লোক নিয়ে চাঁন মিয়ার বাড়িতে গিয়ে তার উপর ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারাত্মকভাবে জখম হন চাঁন মিয়া ও তার স্ত্রী আসমা বেগম। চাঁন মিয়াকে মৃত ভেবে চলে যায় দুর্বৃত্তরা।

পরে পরিবারের লোকজন চাঁনমিয়াকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় প্রথমে তেঁতুলিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে, পরে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতাল এবং শেষে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৬ জুন বিকালে মারা যান চাঁন মিয়া।

শনিবার নিহত চানমিয়ার বড় ছেলে আসলাম উদ্দিন বাদী হয়ে আবুল খায়েরসহ ১১ জনকে আসামী করে তেঁতুলিয়া মডেল থানায় মামলা করেন।

এদিকে এ ঘটনায় শুক্রবার রাতে আব্দুল জব্বার নামে এক আসামিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

আসলাম উদ্দিন বলেন, আমার বাবাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে। খায়ের ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে হামলা করেছে। তার সাথে আমার চাচা মালেক ও তার ছেলেরাও অংশ নেয়। ভাড়াটে সন্ত্রাসী লিটন ও আমার চাচাতো ভাই রহমান আমার বাবার উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারি কুপিয়েছে। পরে মৃত ভেবে তার দ্রুত পালিয়ে যায়। আমরা এখন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। আমার বাবার মতো আমাদেরও তারা হত্যার হুমকি দিচ্ছে। আমাদের দাবি আসামীদের দ্রুত গ্রেপ্তার করে যেন ফাঁসি দেয়া হয়।

তেঁতুলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ছায়েম মিয়া  জানান, ওই ঘটনায় আমরা এর মধ্যে একজন আসামীকে গ্রেপ্তার করেছি। অন্য আসামীদের গ্রেপ্তারের জন্য আমাদের অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

নিউজজি/ এসআই

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers