বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১৩ শ্রাবণ ১৪২৮ , ১৮ জিলহজ ১৪৪২

শিল্প-সংস্কৃতি

গল্পের জাদুকারের প্রয়াণ দিবস আজ

নিউজজি প্রতিবেদক ১৯ জুলাই, ২০২১, ০০:০৪:৪১

  • ছবি: ইন্টারনেট

গল্পের জাদুকর তিনি। এই গল্প দিয়েই তিনি মানুষের মনকে নানাভাবে আলোড়িত করেছেন। মিসির আলী ও হিমুর লজিক-এন্টি লজিক, মধ্যবিত্তের সুখ-দু:খ; তার গল্প থেকে বাদ পড়েনি মুক্তিযুদ্ধ কিংবা ইতিহাসের বাদশা নামদাররা। আর এতেই তিনি পেয়েছেন জনমানুষের উপচে পড়া ভালবাসা। তিনি নন্দিত কথাসাহিত্যিক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হুমায়ূন আহমেদ। আজ তার নবম প্রয়াণ দিবস। 

হুমায়ূন আহমেদ ২০১২ সালের ১৯ জুলাই মৃত্যুবরণ করেন। শেষ ইচ্ছানুযায়ী নিজ হাতে গড়ে তোলা গাজীপুরের নুহাশপল্লীর লিচুতলায় তাকে সমাহিত করা হয়। ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর জনপ্রিয় এই লেখক নেত্রকোণা জেলায় জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৯ সালে ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি এবং পরে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

ছাত্র জীবনেই তার লেখালেখি শুরু। ১৯৭২ সালে তার প্রথম উপন্যাস ‘নন্দিত নরকে’ প্রকাশ পায়। ১৯৭৪ সালে প্রকাশিত হয় দ্বিতীয় উপন্যাস ‘শংখনীল কারাগার’। এই দুটি বই প্রকাশের পর হুমায়ূন আহমেদ একজন শক্তিশালী কথাশিল্পী হিসেবে পাঠকমহলে সমাদৃত হন। সেই থেকে জীবিতকালে তার দুই শতাধিক বই প্রকাশিত হয়। নির্মাণেও দেখিয়েছেন নিজের মুন্সিয়ানা।

নন্দিত এই কথাসাহিত্যিক একাধারে ঔপন্যাসিক, নির্মাতা, গল্পকার, নাট্যকার এবং গীতিকার। তাকে বলা হয় আধুনিক বাংলা কল্পবিজ্ঞান সাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম। নাটক ও চলচ্চিত্র পরিচালক হিসাবেও তিনি সমাদৃত।

দীর্ঘ প্রায় পাঁচ দশক ধরে তিনি লেখালেখির সাথে যুক্ত ছিলেন। তার লেখায় বাঙালি সমাজ ও জীবনধারার গল্পমালা ভিন্ন আঙ্গিকে এবং রসাত্বক ও বিজ্ঞানস্মতভাবে উপস্থাপিত হয়েছে। লেখক ইমদাদুল হক মিলনের ভাষায়, হুমায়ূন আহমেদ একজন কিংবদন্তি বড় লেখক।

বাংলাদেশের সাহিত্যাঙ্গনে হুমায়ূন আহমেদ একটি উজ্জ্বল নক্ষত্র। তার মত এতোটা পাঠকপ্রিয় লেখক এই বাংলায় আর জন্মায়নি, ভবিষ্যতে জন্মাবেন কী-না, কারো জানা নেই। তিনি পাঠক-দর্শক তথা বাঙালির কাছে এতটাই জনপ্রিয় যে, তার একটি নাটকের কাল্পনিক ‘বাকের ভাই’ চরিত্রের জন্য ঢাকার রাস্তায় মিছিল হয়েছিল। তার ‘তুই রাজাকার’ গালিটাতে বাঙালি শিখেছিল রাজাকার-আলবদরদের ঘৃণা করার রূপকবাক্য হিসেবে।

এই কালপর্বে তার গল্প, নির্মাণ ও উপন্যাসের জনপ্রিয়তা ছিল তুলনাহীন। বাংলাদেশের সম্পদ ও বিংশ শতাব্দীতে জনপ্রিয় বাঙালি কথাসাহিত্যিকদের মধ্যে অন্যতম এই পথিকৃৎ, তার লক্ষ-কোটি ভক্তকে শোকে নিমজ্জিত করে ২০১২ সালের আজকের এই দিনে চলে গেছেন না ফেরার দেশে। স্ব-শরীরে আজ হুমায়ূন আহমেদ না থাকলেও তার ভিন্নধর্মী ও বহুমাত্রিক লেখনীর কারণে পাঠকদের মাঝে তিনি বেঁচে থাকবেন বহুকাল। তার প্রতি গভীর শ্রদ্ধা।

নিউজি/রুআ

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন
        
copyright © 2021 newsg24.com | A G-Series Company
Developed by Creativeers