সোমবার, ২৭ জুন ২০২২, ১৩ আষাঢ় ১৪২৯ , ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

বিনোদন

এক ঝাঁক অভিনেতা ও তিনটি গল্পের ‘এই মুহূর্তে’

নিউজজি প্রতিবেদক  জুন ২২, ২০২২, ১৯:৩১:০০

81
  • এক ঝাঁক অভিনেতা ও তিনটি গল্পের ‘এই মুহূর্তে’

তিন কারিগর আর একটা শহর। পিপলু আর খান, মেজবাউর রহমান সুমন ও আবরার আতহার এই সময়ের তিনটি গল্পের সাথে চরকিতে আসছে নতুন সিনেমা নিয়ে। চরকি অরিজিনাল অ্যান্থলজি সিনেমাটির নাম ‘এই মুহূর্তে’। 

বর্তমানে বাংলাদেশে সবচেয়ে আলোচিত ও ভিন্ন চিন্তার এই তিন পরিচালক প্রথমবারের মতো এক ফ্রেমে আসছেন। দর্শক বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) রাত ৮টায় চরকির পর্দায় দেখতে পারবে সিনেমাটি।

কোথায় পালাবে বলো রূপবান:

লোকগাথার রূপবানকে রাজার আদেশে ১২ দিনের শিশু কোলে করে যেতে হয়েছিল বন বাসে। এই সময়ের রূপবান সেই রূপবান থেকে ভীষণভাবে আলাদা। তবে তার কোলেও রয়েছে এক শিশু। যে শিশুকে সে রাজার আদেশে নয় বরং স্বেচ্ছায় নিয়ে বয়ে চলেছে এই কংক্রিটের বনে। এই রূপবান লোকগাথার রূপবান থেকে আলাদা হয়েও কোথায় যেন একই রয়ে গেছে। রূপবান হয়ত এক নারীর অস্তিত্বের লড়াই।

রূপবান-এর গল্পটা যেন আমাদের চারপাশের ঘটনা। এমন ঘটনা আমরা হরহামেশাই দেখি। ‘কোথায় পালাবে বলো রূপবান’-এ কালের এক নারীর লড়াই দেখিয়ে পরিচালিক মেজবাউর রহমান সুমন।

রূপবান-এর মূল চরিত্রে দেখা যাবে প্রিয়ন্তী উর্বী। এই কাজ দিয়েই ওটিটিতে অভিষেক হচ্ছে তার। আর প্রথম প্রডাকশনেই মেজবাউর রহমান সুমনের সাথে কাজ করতে পেরে বেশ উচ্ছ্বসিত এই অভিনেত্রী। উর্বী বলেন, সবকিছু মিলিয়ে এমন অদ্ভুত একটা অনুভূতি কাজ করছে তা ঠিক ভাষায় প্রকাশ করতে পারব না। তবে এতটুকু বলতে পারি কাজটি নিয়ে আমি অনেক নার্ভাস। কারণ, ওটিটি প্রথম কাজ তার উপর আবার সুমন ভাইয়ের পরিচালনায় কাজ করেছি খুব ভয়ে আছি দর্শকদের ভালো লাগবে নাকি।

রূপবান চরিত্রের জন্য নিজেকে কীভাবে তৈরি করেছেন জানতে চাইলে উর্বী বলেন, প্রায় ৩ মাস ধরে আমার গ্রুমিং চলেছে। হাসতে মানা ছিল; কারণ বাস্তবের আমি কারণে অকারণে খুব হাসি। শুটিংয়ের ৭ দিন আমার ফোন ব্যবহার করা নিষেধ ছিল। তারপর সারাদিন আমার কোলে একটা নবজাতক ছিল। সব মিলিয়ে দারুণ এক অভিজ্ঞতা হয়েছে কাজট করে। এখন দর্শকদের কেমন লাগবে সেই অপেক্ষায় আছি।

প্রায় এক যুগ পর ফিকশন বানালেন মেজবাউর রহমান সুমন। তাই ‘এই মুহূর্তে’ অ্যান্থলজি সিনেমাটি নিয়ে তিনিও বেশ আনন্দিত। তিনি বলেন, দীর্ঘ প্রায় ১২ বছর পর আমার আবার ফিকশনে ফেরা। আর সেটা একটা অ্যান্থলজি প্রজেক্টের মধ্য দিয়ে। সামনে আমার আরেকটা সিনেমা মুক্তি পাবে। সব মিলিয়ে আমার জন্য সময়টা খুব আনন্দের।

এই প্রজেক্টে সব থেকে ভালো লাগার বিষয় হলো আমদের এক সাথে কাজ করা। এই কাজের মধ্য দিয়ে আমাদের তিন পরিচালকের চিন্তার জায়গাগুলো একে অপরের মধ্যে অনেক আদান প্রদান হয়েছে। সেটা হয়ত আড্ডার ছলেও হয় কিন্তু এবার সেটা কাজের মাধ্যমে খুব বেগবান হয়েছে।

‘কোথায় পালাবে বলো রূপবান’-এ উর্বীর সাথে আরও দেখা যাবে মোস্তাফিজুর নূর ইমরান,  রাশেদা রাখি, কামরুজ্জামান তাপু, দৃষ্টি প্রামাণিকসহ আরও অনেকে।

ওয়ান পিস মেড কারিগর ইজ ডেড:

চৌদ্দগুষ্টি মিলে যখন প্ল্যান করে ফারহা’র পারিবারিক জীবন নিয়ে সালিশ বসায় তখন এক দল উদ্ভট ক্যারেক্টার—বাবা, মা, টাকাওয়ালা প্রভাবশালী আঙ্কেল, শাশুড়ি আর একজন কাজিন জড়িয়ে যায় একটা জটিল ন্যারেটিভের খেলায়। একই সময়ে পাশের বাড়িতে ঘটে যায় এক তুলকালাম কাণ্ড।

আবরার আতহার পরিচালিত এই গল্পটির নাম দেয়া হয়েছে ‘ওয়ান পিস মেড কারিগর ইজ ডেড’। এই গল্পে প্রায় ২৫ জন অভিনেতা-অভিনেত্রী কাজ করেছেন। এই কাজের মধ্য দিয়ে দীর্ঘদিন পর শহীদুজ্জামান সেলিম ও রোজী সিদ্দিকী দম্পতিকে একসাথে দেখবে দর্শক। ওটিটিতে অভিষেক হবে সুনেরাহ বিনতে কামালের। 

সেই সাথে এই কনটেন্টে আছেন রোকেয়া প্রাচী, ইয়াশ রোহান, তাসলিমা হোসেন নদী, আশীষ খন্দকার, ইরফান সাজ্জাদ, শরীফ সিরাজ, তৌফিকুল ইসলাম ইমন, আরিক আনাম খান, নাওয়াফ নাসের, সায়রাজ মেহেদি রিংকু, শরিফুল ইসলাম, সৈয়দ গোলাম সারওয়ার, ইউনুস আলী, সৈয়দ নাজমুস সাকিব, ইফতেখার ইমাজ, ফাহি তানু, রিমন হোসেন খান, বিজয়া রত্নাবলি, সোহান রহমান, রিয়াসাত সালেকিন, আবরার জাহিন রাফি, ইমান প্রধান, আতহার মিজবাহ অর্ণব প্রমুখ।

পরিচালক আবরার আতহার বলেন, ‘পিপলু ভাই ও সুমন ভাইয়ের সাথে কাজ করাটা ছিল আমার জন্য ভয়ের, চ্যালেঞ্জের ও এক্সসাইটমেন্টের। আর অনেক কিছু শেখারও ছিল। আমরা তিনজন একদম ভিন্ন তিন রকমের গল্পকার। আমরা সবাই সমসাময়িক বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করেছি। যা প্রতিনিয়ত আমাদের চোখের সামনে ঘটে থাকে তা অনন্য শৈল্পিক দৃষ্টিভঙ্গির মাধ্যমে তুলে ধরার চেষ্টা করেছি। আমি আশা করি, দর্শক এটা দেখে মজা পাবে।

কল্পনা:

দুটি অপরিচিত মানুষের একটি মুহূর্তের গল্প আবর্তিত হয়েছে তাদের আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি দিয়ে। যেখানে আরও দুজন মানুষের আবির্ভাব হয় যারা তাদের মতো করে নতুন করে দেখে। টিভিসি জগতে পরিচিত এক নাম পিপলু আর খান। এই অ্যান্থলজি সিনেমার ‘কল্পনা’ গল্পটি তার নির্মিত।

প্রায় দেড় দশক পর সারা যাকেরকে অভিনয়ে দেখবে দর্শক। সেই সাথে রয়েছেন জাহিদ হাসানের মতো বাঘা অভিনেতা। এই দুই প্রবীণ অভিনেতা সাথে রয়েছেন তানজিম সাইয়ারা তটিনী ও দিব্য জ্যোতি।

পিপলু আর খান বলেন, এই কনটেন্টটা খুব ইন্টারেস্টিং দুইটা কারণে। প্রথমত, এই মুহূর্তে খুব কোয়ালিফাই করে যে, সোসাইটির কিছুর গভীর ক্ষত বা প্রবাহ আমরা যেরকম দেখি সেভাবে দেখানো। দ্বিতীয়ত, এইটা একটা সেন্সবল ও সেন্সিটিভ প্রজেক্ট। আমরা তিনজন চেষ্টা করেছি সমসাময়িক যে ঘটনাগুলা হয়েছে সেটার একটা ফিকশনাল ব্যাখ্যা তৈরি করতে।

তিনি আরও বলেন, এক অর্থে এটা আমার প্রথম ফিকশন। আর ফিকশনেই দুইজন প্রবীণ ও দুজন নবীন অভিনেতার সাথে কাজ করার অভিজ্ঞটা দুর্দান্ত। এই প্রজেক্টের যে সামাজিক সচেতনতা আছে তা সময় উপযোগী। এই মুহূর্তে হচ্ছে আমাদের সমাজের এক প্রকার পরাজয়ের গল্প, হেরে যাওয়ার গল্প। যেটা সৃজনশীলভাবে দর্শকের কাছে নিতে চাই।

চরকির প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা রেদওয়ান রনি বলেন, এই মুহুর্তে চরকির প্রথম অ্যান্থোলজি ফিল্ম। তিন গুণী নির্মাতার করা প্রথম সিনেমা এটি। তিনটি ছোট গল্পে রয়েছে একাধিক অভিনেতা-অভিনেত্রীর উপস্থিতি। সব মিলিয়ে দারুণ একটি কাজ চরকিতে আসতে চলেছে। 

নিউজজি/রুআ/নাসি 

পাঠকের মন্তব্য

লগইন করুন

ইউজার নেম / ইমেইল
পাসওয়ার্ড
নতুন একাউন্ট রেজিস্ট্রেশন করতে এখানে ক্লিক করুন